বুধবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২০, ০৬:৪৫ অপরাহ্ন১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

নোটিশঃ
ওয়েবসাইটে আপনাকে স্বাগতম। নাগরিক আইটি থেকে কম মূল্যে ওয়েবসাইট বানাতে আজই যোগাযোগ করুন। কল করুন- ০১৫২১ ৪৩৮৬০১
সংবাদ শিরোনাম :
ছাতকে মধ্যরাতে জায়গা দখল করে ঘর নির্মাণ-গ্রেপ্তার ১ সুনামগঞ্জে সহকারী শিক্ষক সমিতির উদ্যোগে হারিছ উদ্দিনের স্বরণ সভা অনুষ্ঠিত সুনামগঞ্জে বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্যদিয়ে মৎস্যজীবি লীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন হাওর বিষয়ক মন্ত্রণালয় বাস্তবায়ন আন্দোলন ফোরামের সংবাদ সম্মেলন স্বাস্থ্য পরিদর্শক ও স্বাস্থ্য সহকারীরা বেতন বৈষম্য নিরসনের দাবীতে কর্মবিরতি পালন নাজমুল হকের অকাল মৃত্যুতে নারী নেত্রী ফেরদৌস আরা পাখি”র শোক ও সমবেদনা দিরাই উপজেলা চেয়ারম্যানের সাথে মত বিনিময় করেন ডক্টর সামছুল হক চৌধুরী মাদ্রাসা উন্নয়নে নগদ অর্থ প্রদান করেন যুক্তরাজ্য প্রবাসী আবু বক্কর খাঁন সার্চ মানবাধিকার সংগঠনের উদ্যোগে ড. সামছুল হক চৌধুরী ও আবু বক্কর খাঁনকে সংবর্ধনা প্রদান এমপিও নীতিমালার বৈষম্য দূরীকরণের দাবীতে মানববন্ধন
তাহিরপুরে নিত্য প্রয়োজনীয় পন্যের মূল্য বাড়িয়ে দিয়েছে দোকানীরা

তাহিরপুরে নিত্য প্রয়োজনীয় পন্যের মূল্য বাড়িয়ে দিয়েছে দোকানীরা

আবু জাহান তালুকদার, তাহিরপুর প্রতিনিধিঃ
সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে বিভিন্ন বাজারে করোনা ভাইরাসের প্রভাবে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য সকালে এক দাম তো বিকালে আরেক দাম।

উপজেলার বাজার গুলোতে চাল, পেঁয়াজ, চিনি ও তেলের দাম হু হু করে বাড়ছে। সাধারণ ক্রেতারা নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য কিনতে গিয়ে এখন রিতিমতো হিমশিম খাচ্ছেন।

তাহিরপুর উপজেলার বাণিজ্যকেন্দ্র বাদাঘাট বাজার, বালিয়াঘাট বাজার, তাহিরপুর সদর বাজার, শ্রীপুর বাজার, কাউকান্দি বাজার, বড়ছড়া জয়বাংলা বাজার, চারাগাঁও বাজার, কলাগাও বাজার, বাগলী বাজার, আনোয়ারপুর বাজারসহ বিভিন্ন বাজারে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে দোকানিরা একদিন আগেও এক বস্তা (৫০ কেজি) চাল ১৮শ টাকা ছিল, আজ একই চাল ২৩শ টাকা, পেঁয়াজ কেজি ৫০শ টাকা থেকে ১শ টাকা, চিনি ৬০ থেকে ৮৫ টাকা, সোয়াবিন তেল প্রতি লিটার ১শ থেকে ১২০ টাকা সহ ব্যবসায়ীরা যে যার মতো ক্রেতাদের কাছে বিক্রি করছেন।

অপরদিকে ক্রেতারা পণ্য পাবেন না আসায় কেউ কেউ এক কেজির স্থলে ৩ থেকে ৪ কেজি করে ক্রয় করছেন বলে জানিয়েছেন নিত্য পণ্য ব্যাবসাীরা।

তাহিরপুর সীমান্তবর্তী কলাগাও গ্রামের মন্নাফ মড়ল জানিয়েছেন, করোনা ভাইরাসের কারণে চাল সীমিত দেখিয়ে কলাগাও বাজার ও কলাগও মোড়ে যে চাল একদিন আগেও ১৮শ টাকা ছিল, সেই চালই ব্যবসায়রা এখন প্রতি বস্তা ২৩শ টাকা ধরে বিক্রি করছেন।

তিনি স্থানীয় প্রশাসন কে তাহিরপুর সীমান্তবর্তী এলাকার বাজারগুলোতে নজর দেয়ার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন।

কামড়াবন্ধ গ্রামের এক স্কুল শিক্ষিকা জানান, শুক্রবার সকালে বাণিজ্য কেন্দ্র বাদাঘাট বাজারে গিয়ে পেয়াজ কিনতে চাইলে দোকানীরা প্রথমে পেয়াজ নাই বলে জানান। পরে কেউ কেউ লুকিয়ে ৩৫ টাকার পেয়াজ ১শ টাকা করে বিক্রি করছেন।

তিনি বলেন, শনিবার সকালে বাজারে পুলিশ আসার সংবাদ পেয়েই ব্যবসায়ীরা পেয়াজঁ ৫৫ থেকে ৬০ টাকা করে বিক্রি করতে শুনেছেন।

বানিয়াগাও গ্রামের সুজন মিয়া জানান, বালিয়াঘাট নতুন বাজারে গিয়ে দেখেন, সবাই করোনা ভাইরাসের ভয়ে এক সঙ্গে ৪ থেকে ৫ কেজি করে পেয়াজ আর লবণ কিনছেন। পরে তিনিও কোন উপায় না পেয়ে ৩৫ টাকার পেয়াজ প্রতি কেজী ১শ টাকা করে কিনেছেন।

বালিয়াঘাট গ্রামের রেজাউল বলেন, বালিয়াঘাট নতুন বাজার থেকে একদিন আগে ১ বস্তা চাল নিয়েছেন ১৮শ টাকা দিয়ে এবং পেয়াজ নিয়েছেন ৩৫ টাকা দিয়ে। একদিন পরই শুনেন চালের বস্তা ২৩শ টাকা আর পেয়েজের কেজি ১শ টাকা। এই অবস্থা হলে সাধারণ ক্রেতারা ক্যামনে চলবে বলে মন্তব্য করেন।

তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিজেন ব্যানার্জি এ বিষয়ে জানান, কোন অজুহাতেই দ্রব্য মূল্য বৃদ্ধি করা যাবে না। অবৈধভাবে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধিকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। তাহিরপুর উপজেলার প্রতিটি বাজারে পুলিশ মনিটরিং করছে।

তিনি এ উপজেলার ব্যাবসায়ীদের উদ্দেশ্যে আরো বলেন, দেশের এই সংকটকালীন মুহূর্তে, নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি করে অথবা পণ্যের কৃত্রিম সংকট তৈরি করে, অধিক মুনাফা লাভের আশায়, দরিদ্র ক্রেতাদের জীবনযাত্রায় সীমাহীন দূর্ভোগ সৃষ্টি না করে তাদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য তিনি অনুরোধ জানান।

শেয়ার করুন
  • 103
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  





themesba-zoom1715152249
©সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত।
Developed By: Nagorik IT