শনিবার, ০৬ মার্চ ২০২১, ০১:৫৯ অপরাহ্ন২১শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

নোটিশঃ
ওয়েবসাইটে আপনাকে স্বাগতম। নাগরিক আইটি থেকে কম মূল্যে ওয়েবসাইট বানাতে আজই যোগাযোগ করুন। কল করুন- ০১৫২১ ৪৩৮৬০১
সংবাদ শিরোনাম :
এইচ টি ইমাম এর মৃত্যুতে আলহাজ্ব মতিউর রহমানের শোক জগন্নাথপুরের ১১৪ নং দক্ষিণ প্রভাকরপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি গঠন দক্ষিণ সুনামগঞ্জে লোকনাথ পূজাঁয় প্রতিপক্ষের চুরিকাঘাতে নিহত ১ আহত ২জন বীর মুক্তিযোদ্ধা এড. বজলুল মজিদ চৌধুরী খসরু”র রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাপন সম্পন্ন ফতেপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান রনজিত চৌধুরী রাজনকে হত্যা করার চেষ্টার অভিযোগ বহুবিবাহ ঠেকাতে বিবাহ পদ্ধতি ডিজিটাল করা জরুরি : ফররুখ শাহজাদ চলে গেলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট বজলুল মজিদ চৌধুরী খসরু ই‌ন্তেকাল বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন যুক্তরাজ্য শাখার উদ্যোগে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হাওর ভাতা প্রাপ্যতার দাবিতে শিক্ষকদের মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান ভাষা শহীদদের প্রতি পুরুষ অধিকার সংগঠনের শ্রদ্ধা নিবেদন
তাহিরপুরে সাংসদ রতনের ত্রাণ না পেয়ে জনমনে হতাশা-নিউ টাইমস্২৪

তাহিরপুরে সাংসদ রতনের ত্রাণ না পেয়ে জনমনে হতাশা-নিউ টাইমস্২৪

তাহিরপুর প্রতিনিধি :: সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে গত কয়েকদিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফেসবুকে সুনামগঞ্জ ১ আসনের সাংসদ ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের ব্যক্তিগত তহবিল থেকে নির্বাচনী এলাকা (জামালগঞ্জ, ধরমপাশা, মধ্যনগর ও তাহিরপুর) উপজেলায় ত্রাণ বিতরণ করা হবে বলে ব্যাপক প্রচারণা চালান স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা।

রবিবার দুপুর ১২টার দিকে সাংসদ মোয়াজ্জেম হোসেন রতন প্রথমে তাহিরপুর উপজেলা সদরে ত্রাণ বিতরণ করেন।

পরে দুপুর সোয়া একটার দিকে উপজেলার অন্যতম বাণ্যিজিক কেন্দ্র বাদাঘাট বাজারে আসেন ত্রাণ বিতরণ করতে। প্রথমে তিনি স্থানীয় আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে যান ত্রান বিতরণ করতে। কিন্তু সেখানে ত্রাণ নিতে আসা লোকজনের ভিড় সামলাতে না পেরে তাদের বাদাঘাট সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে যেতে বলেন নেতাকর্মীরা।

এইদিকে বিদ্যালয় মাঠে গিয়ে দেখা যায়, প্রায় চার শতাধিক নারী, পুরুষ ও শিশু লাইন করে দাঁড়িয়ে আছেন ত্রাণের অপেক্ষায়। কিছুক্ষণপর সাংসদ রতন স্কুল মাঠে এসে কয়েকজনকে ত্রাণ দিয়ে দ্রুত চলে যান। তিনি চলে যাওয়ার পরপরই ত্রাণ নিতে আসা লোকজনের মধ্যে শুরু হয় ত্রাণ নিয়ে কাড়াকাড়ি। এক পর্যায়ে পরিস্থিতি সামলাতে হিমশিম খেতে হয় পুলিশদের। পরিস্থিতি সামাল দিতে না পেরে সাংসদের সঙ্গে থাকা স্থানীয় নেতৃবৃন্দ দ্রুত স্কুলমাঠ ত্যাগ করেন।

ত্রান নিতে আসা নারী পুরুষ স্থানীয় সাংবাদিকদের কাছে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ত্রাণ দিতে পারবেনা তাহলে এখানে রৌদের মধ্যে ঘন্টার পর ঘন্টা লাইনে দাঁড় করিয়ে রাখার মানে কি? এসময় শত শত নারী, পুরুষ ও শিশুকে ত্রাণ না পেয়ে খালি হাতে হতাশ হয়ে বাড়ি ফিরে যেতে দেখা গেছে।

শেয়ার করুন
  • 70
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  





themesba-zoom1715152249
©সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত।
Developed By: Nagorik IT