ফুরফুরে মেজাজে আছে সিলেট যুবলীগ, ৭শ ৪৯ কর্মীর হাতে ভাগ্য নির্ধারণ যুবলীগের

0
71

বিশেষ প্রতিনিধি: ফুরফুরে মেজাজে আছে সিলেট যুবলীগ। জেলা ও মহানগরের সম্মেলনকে সামনে রেখে নেতাকর্মীদের প্রাণচাঞ্চল্যে এখন মুখরিত সংগঠনটি। চলছে সম্মেলনের পুরো প্রস্তুতি।সম্ভাব্য প্রার্থীরা যাচ্ছেন ভোটারদের বাড়ি বাড়ি।মেঘ বৃষ্টি উপেক্ষা করে বিরামহীন চলছে প্রচার- প্রচারনা।
সম্মেলন সফলের লক্ষ্যে ইতোমধ্যে কাউন্সিলর তালিকা সম্পন্ন করেছে জেলা যুবলীগ। একইভাবে দলের মহানগর শাখাও কাউন্সিলর তালিকা সম্পন্ন করেছে। উভয় কমিটির কাউন্সিলর তালিকা ইতোমধ্যে কেন্দ্রে হস্তান্তর করার বিষয়টিও নিশ্চিত করেছেন নিজ নিজ সংগঠনের শীর্ষ নেতৃবৃন্দ। চলতি মাসের ২৭ জুলাই সংগঠনের মহানগর এবং ২৯ জুলাই জেলা সম্মেলনের তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।
কেন্দ্রে পাঠানো তালিকা অনুযায়ী জেলা ও মহানগর যুবলীগের মোট কাউন্সিলরের সংখ্যা সর্বমোট ৭শ ৪৯ জন। এর মধ্যে জেলা যুবলীগের কাউন্সিলর সংখ্যা ২ শ’৮৩জন এবং মহানগরে এই সংখ্যা ৪শ’৬৬ জন। এই ৪ শ’৬৬ জন কাউন্সিলর নিজেদের প্রত্যক্ষ ভোটে নির্বাচিত করবেন জেলা ও মহানগরের নতুন কমিটি।
সিলেট জেলা উপজেলা রয়েছে মোট ১৩ টি। এর মধ্যে দুটি উপজেলায় কমিটি গঠন করা সম্ভব হয়নি। এই দুটি উপজেলা হল সিলেট সদর এবং বিয়ানীবাজার উপজেলা। বাকী ১১ উপজেলার মধ্যে কেন্দ্র ঘোষিত ৭ উপজেলায় ২১জন করে মোট মোট ১৪৭জন তিন উপজেলায় ২৫ জন করে মোট ৭৫ জন, গোলাপগঞ্জে ৯ সদস্য আহবায়ক কমিটির মধ্যে ১ জন জেলা কমিটিতে যুক্ত থাকায় মোট ৮ জন এবং জেলা থেকে মোট ৫৩ জন কাউন্সিলরের তালিকা কেন্দ্রে প্রেরণ করা হয়েছে।
তালিকা প্রদানকালে জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক খন্দকার মহসিন কামরান বলেন, একটি গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার নির্বাচনের মাধ্যমে দেশের নাম্বার ওয়ান যুব সংগঠন আবারো বলীয়ান হয়ে উঠবে-এই প্রত্যাশা তৃণমূল নেতাকর্মীদের। তালিকা গ্রহণকালে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ বলেন, খুব দ্রুতই ভোটার তালিকা হালনাগাদ করার মধ্য দিয়ে একটি সফল সম্মেলনের মধ্য দিয়ে আগামীর নের্তৃত্ব বের হবে-এটাই প্রত্যাশা।
কেন্দ্রে পাঠানো ভোটার তালিকা অনুযায়ী মহানগর যুবলীগের মোট ভোটার সংখ্যা ৪শ’৬৬জন। এর মধ্যে মহানগর কমিটির মোট ভোটার সংখ্যা ৬১ জন। ২৭ টি ওয়ার্ডে ১৫ জন করে মোট ভোটার রয়েছেন ৪শ ৫ জন।
আগামী ২৭ জুলাই সিলেটে অনুষ্ঠিত হচ্ছে মহানগর যুবলীগের সম্মেলন। এর আগে ২৯ জুলাই সম্মেলনের তারিখ ধার্য করা থাকলেও কেন্দ্রীয় নির্দেশে তারিখ পরিবর্তন করে ২৭ জুলাই পরিবর্তিত তারিখে সম্মেলনের তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। এর ফলে দীর্ঘ ৫ বছর আহবায়ক কমিটিতে বন্দী থাকা মহানগর যুবলীগ নতুন করে সরব হচ্ছে। ইতোমধ্যে সংগঠনের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বর্ধিত সভায় কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে নেতাকর্মীদের উপস্থিতি ছিল বেশ লক্ষ্যনীয়। এর ফলে দলীয় কর্মীদের মধ্যে উৎফুল্লতা লক্ষ্য করা গেছে।
ওয়ার্ড পর্যায়ের কর্মীরা বলছেন-একটি ক্রাইসিস প্রিয়ডে ছিল মহানগর যুবলীগ। বর্তমানে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের নির্দেশে মহানগরের সম্মেলন অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে সেই রাজনৈতিক ক্রাইসিস কেটে যাবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here